Breaking News
Home / সারাদেশ / মোবাইল কোর্টে ব্যাবসায়িকে জরি’মানা করে ২৪কেজি পিয়াজ নিয়ে গেলেন ইউএনও

মোবাইল কোর্টে ব্যাবসায়িকে জরি’মানা করে ২৪কেজি পিয়াজ নিয়ে গেলেন ইউএনও

আগৈলঝাড়া প্রতিনিধিঃ
বরিশালের আগৈলঝাড়ায় করোনায় বাজার নিয়ন্ত্রনে মোবাইল কোর্টে গিয়ে অতিরিক্ত দামে পিয়াজ বিক্রির অভি’যোগে ব্যবসায়ীকে ৫হাজার টাকা জরি’মানা করে ৩০ টাকা দরে ওই ব্যবসায়ির ৬মন পিয়াজ বিক্রি করলেন ইউএনও। পরে ওই ব্যবসায়ির ২৪ কেজি পিয়াজের মূল্য না দিয়ে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেয়ার কথা বলে ইউএনও নিজে নিয়ে যাওয়ার অভি’যোগ করেছন ভুক্তভোগী ব্যবসায়ি। ইউএনও’র পিয়াজ নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার।

উপজেলার গৈলা বাজারের কাঁচামাল ব্যবসায়ি দক্ষিণ শিহিপাশা গ্রামের সালাউদ্দিন বেপারী অভি’যোগে বলেন, শুক্রবার সকালে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের সহায়তায় ভ্রাম্যমান আ’দালত পরিচালনা করতে বাজারে যান উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট চৌধুরী রওশন ইসলাম। আদা’লতের বিচা’রক তার দোকানে গিয়ে কত টাকায় পিয়াজ বিক্রি করছেন জানতে চান। এসময় ব্যবসায়ি সালাউদ্দিন আদা’লতকে জানান ৫২টাকায় ক্রয় করে ৬০টাকা দরে প্রতি কেজি পিয়াজ বিক্রি করছেন তিনি। ভ্রাম্যমান আ’দালতের বিচা’রক বেশী দামে পিয়াজ বিক্রি করার অভি’যোগে ব্যবসায়ি সালাউদ্দিনকে ৫হাজার টাকা জরি’মানা করে তা আদায় করেন। এসময় সালাউদ্দিন ছাড়াও ওই বাজারের অপর দুই ব্যবসায়িকে ৫হাজার টাকা করে মোট ১০ হাজার টাকাও জরি’মানা করে আদা’লত। অভি’যানে আদা’লতের বিচা’রক সালাউদ্দিনকে বলেন, যে দামেই পিয়াজ কেনা হোক না কেন ? ৩০টাকা দরে বাজারে পিয়াজ বিক্রি করতে হবে জানিয়ে ইউএনও জরি’মানা করা ব্যবসায়ি সালাউদ্দিনের ঘরে থাকা ৬ মন পিয়াজ ৩০টাকা কেজি দরে উপস্থিত লোক জনের কাছে নিজে বিক্রি করে দেন।
ব্যবসায়ি সালাউদ্দিন জানান, কেনা দামের থেকে কম টাকায় তার ৬মন পিয়াজ বিক্রি করায় ৫২৮০ টাকা আর্থিক ক্ষতির সন্মুখিন হয়েছেন তিনি। ৩০টাকা দরে ৬মন পিয়াজ বিক্রির টাকা তাকে দেয়ার পরে ইউএনও ঘরে থাকা পিয়াজ একটি বস্তা ভরতে বলেন তাকে। সালাউদ্দিন ঘরে থাকা পিয়াজ বস্তা ভরে ওজন দিয়ে জানান সেখানে ২৪ কেজি পিয়াজ রয়েছে। এসময় ইউএনও ওই ২৪ কেজি পিয়াজ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা হবে জানিয়ে তার কোন মূল্য তাকে দেবেন না বলে ২৪ কেজি পিয়াজ নিজের জিম্মায় নিয়ে নেন ইউএও চৌধুরী রওশন ইসলাম। প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তাদের কাছে তার প্রতি অবি’চারের বি’চার দাবি করে সালাউদ্দিন বলেন, ৫হাজার টাকা জরি’মানা করার পরেও কেনা দামের চেয়ে ২২টাকা কম দামে পিয়াজ বিক্রি করে ৫৮২০টাকা ক্ষতি হয়েছে তার। তার পরেও ইউএনও ২৪ কেজি পিয়াজ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমার নাম করে অকারণে নিয়ে গেছেন। আল্লাহর কাছে বিনা টাকায় গরীবের হক খাওয়ার বিচার দাবি করেন ব্যাবসায়ি সালাউদ্দিন। এব্যাপারে ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার চৌধুরী রওশন ইসলামের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি অভি’যান পরিচালনা ও ব্যবসায়ি সালাউদ্দিনকে জরিমানার কথা স্বীকার করেন। তবে কোন ধারায় তাকে জরি’মানা করেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা তার মনে নেই। রাষ্ট্রীয় কোষাগারের কথা বলে ২৪ কেজি পিয়াজ নিজে নেয়ার কথা অস্বীকার করেন তিনি।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যন মুক্তিযো’দ্ধা আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাত বলেন, ভ্রাম্যমান আদা’লতের অভি’যান পরিচালনার কথা তিনি জানেন না। তবে অভি’যানে গিয়ে যদি পিয়াজ নিয়ে আসে তবে সেটা নেহাত অন্যায় কাজ হয়েছে। এব্যাপারে বক্তব্যর জন্য বরিশাল জেলা প্রশাসকের ফোনে একাধিক সাংবাদিক একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Check Also

করোনা মোকাবেলায় আগৈলঝাড়ায় ফায়ার সার্ভিসের জীবাণু নাশক স্প্রে

আগৈলঝাড়া প্রতিনিধিঃ ফায়ার সার্ভিসের উদ্যোগে হাসপাতালে ভর্তি সাধারণ রোগীসহ লক ডাউন আগৈলঝাড়ায় করোনা ভাইরা’স মোকাবেলায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *