Breaking News
Home / সারাদেশ / আগৈলঝাড়ায় বিদেশ ফেরত ৪৭৪ জন, হোম কোয়ারেন্টিনে মাত্র ১৭জন,গোয়েন্দা তালিকায় দ্বিতীয় ঝুঁকিতে আগৈলঝাড়া

আগৈলঝাড়ায় বিদেশ ফেরত ৪৭৪ জন, হোম কোয়ারেন্টিনে মাত্র ১৭জন,গোয়েন্দা তালিকায় দ্বিতীয় ঝুঁকিতে আগৈলঝাড়া

আগৈলঝাড়া প্রতিনিধি: বরিশালের আগৈলঝাড়ায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে বিদেশ ফেরত ৪৭৪ জনের মধ্যে ঝুঁকি এড়াতে নিরাপত্তার স্বার্থে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা ২৭ জনের বাড়িতে মঙ্গলবার বিকেলে লাল নিশান টানিয়ে নির্দিষ্ট করে দিয়েছে পুলিশ প্রশাসন। তবে অন্যন্য দিনের মতো বিভিন্ন হাট বাজারে দোকানপাঠ খোলা থাকলেও আগের চেয়ে লোক সমাগম ছিল কিছুটা কম।

সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ি বিদেশ থেকে আসা স্বেচ্ছায় হোম কোরেন্টাইনে থাকা লোকজনের বাড়ি বাড়ি গিয়ে চারদিকে পুলিশের সহযোগীতায় লাল নিশান টানিয়ে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। যাতে এলাকার সাধারণ বাড়ি থেকে ওই বাড়িটি আলাদা করে চেনা যায় এবং সবাই শতর্ক থাকেন। তিনি আরও বলেন, হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার মানে এই নয় যে, ওই ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। জাতীয় দুর্যোগ মোকাবেলার অংশ হিসেবে করোনা প্রতিরোধেই এমন ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানান থানা অফিসার ইন চার্জ মো. আফজাল হোসেন।লাল নিশান উপজেলা ৫০ শয্যা হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বখতিয়ার আল মামুন জানান, করোনা প্রতিরোধ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে। করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত যে কোন তথ্য এবং শর্দি, জ্বর কাশিসহ সন্দেহজনক যে কোন ব্যক্তিকে সেবা প্রদানের জন্য ২ ফেব্রুয়ারি থেকে ০১৭৩০-৩২৪৪০৮ নম্বরে একটি হট লাইন চালু করা হয়েছে। হাসপাতালের পুরান ভবনে স্থাপন করা হয়েছে ৫ শয্যার করোনা আইস্যুলেশন কেন্দ্র। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ব্যতীত সাধারণ সর্দি, হাঁচি, কাশি, জ্বরে আক্রান্ত রোগীদের জন্য আলাদা একটি ইউনিটও চালু করা হয়েছে জানিয়ে বলেন, হাসপাতালে ভর্তি অন্য রোগীদের ভাইরাতে আক্রান্ত হওয়া থেকে সুরক্ষা দিতেই এই ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। করোনা মোকাবেলায় চিকিৎসকেদের সুরক্ষার জন্য সরকার থেকে প্রয়োজনীয় পিপিএ পাওয়া গেছে। ৮ ঘন্টা পর পর চিকিৎসকেরা রোস্টার ডিউটির মাধ্যমে হট লাইনে সেবা প্রদান করে যাচ্ছেন। উপজেলার যে কোন লোককে এই হট লাইনের মাধ্যমে সেবা গ্রহনেও আহ্বান জানিয়ে বলেন সবদিক দিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ করোনা মোকাবেলায় সকল প্রস্তুতি গ্রহন করেছে। তবে উপজেলায় এখন পর্যন্ত কোন করোনা রোগী সনাক্ত হয়নি বলেও জানান তিনি।
সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য অনুযায়ি ১মার্চ থেকে ২৩ মার্চ পর্যন্ত বিদেশ থেকে পাসপোর্টধারী ৪৭৪ জন লোক আগৈলঝাড়া উপজেলায় প্রবেশ করেছে। নাম না প্রকাশের শর্তে সংস্থার ওই কর্মকর্তা বলেন, এক সংখ্যক লোকের মধ্যে হোম কোয়ারেন্টির আওতায় রয়েছে মাত্র ২৪জন। অন্যরা ঘুরে বেড়াচ্ছেন প্রকাশ্যে। যা এলাকার জন্য উদ্বেগজনক বলে অভিমত প্রকাশ করেছেন তিনি। ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, জেলার মধ্যে প্রথম ঝুকিতে রয়েছে গৌরনদী উপজেলা আর দ্বিতীয় ঝুকির তালিকায় রয়েছে আগৈলঝাড়া উপজেলা। বিদেশ থেকে আসা লোকজন হোম কোয়ারেন্টাইনে না থাকায় এই ঝুকির মাত্রা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি আরও বলেন, সরকার এখন যেভাবে বিদেশ থেকে আসা লোকজনকে সেনা বাহিনীর মধ্যমে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যবস্থা করছে অনেক আগেই এটা করা উচিত ছিল। ওই সকল লোকজন এলাকার বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে যাওয়ায় তাদের খুঁজে বের করা যেমন কঠিন তেমনি ভাইরাস ছড়িয়ে যাবার আশংকাও বেড়েছে বহুগুনে। তারপরেও সকরকারের বিভিন্ন বাহিনী করোনা মোকাবেলায় তৎপর রয়েছে।

Check Also

গৌরনদীতে তিন’শত পরিবারের বাড়ি পৌঁছে দেয়া হয়েছে ঈদ সামগ্রী

আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার সরিকল ইউনিয়নে মঙ্গলবার দিন ব্যাপী তিন’শ পরিবারের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *