Breaking News
Home / খেলাধুলা / আশরাফুলকে দেশদ্রোহী ও ফিক্সার বললেন নান্নু, পাল্টা জবাব দিলেন আশরাফুল

আশরাফুলকে দেশদ্রোহী ও ফিক্সার বললেন নান্নু, পাল্টা জবাব দিলেন আশরাফুল

আশরাফুলকে দেশদ্রোহী ও ফিক্সার বললেন নান্নু, পাল্টা জবাব দিলেন আশরাফুল

জাতীয় দলের সাবেক দুই অধিনায়ক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ও মোহাম্মদ আশরাফুলের কথার লড়াইয়ে রীতিমত তুলকালাম কাণ্ড বেঁধেছে। আশরাফুলকে নান্নু ‘দেশদ্রোহী ও ফিক্সার’ আখ্যা দেওয়ার পর দীর্ঘ এক ফেসবুক লাইভে এসে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আশরাফুল।

স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগে ২০১৩ সালে নিষিদ্ধ করা হয় আশরাফুলকে, যিনি তৎকালীন সময়ে বাংলাদেশের ইতিহাসের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার হিসেবে বিবেচিত হতেন। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে জাতীয় দলে ফেরা হয়নি আর, তবে আশরাফুল নিয়মিতই খেলছেন ঘরোয়া ক্রিকেটে।

সম্প্রতি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল যমুনা টিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আশরাফুল বলেছিলেন, ক্রিকেট দলের নির্বাচক প্যানেলের সদস্যদের কাজে মেয়াদ ৩ থেকে ৪ বছর হলে ভালো হয়। এই বিষয়ে নান্নুর কাছে জানতে চাইলে একই টেলিভিশনের এক লাইভ অনুষ্ঠানে আশরাফুলকে দেশদ্রোহী বলে আখ্যায়িত করেন।

নান্নু বলেন, ‘আশরাফুলের এই কথার সাথে আমি একটা জিনিস যুক্ত করতে চাই। অস্ট্রেলিয়ার একজন প্রধান নির্বাচক কত বছর কাজ করেছে ওর বোধহয় ধারণা নেই। প্রায় ৯ থেকে ১২ বছর একনাগাড়ে কাজ করেছে। অস্ট্রেলিয়া কি ক্রিকেট থেকে পিছিয়ে গিয়েছে?’

এরপর খানিক ক্ষিপ্ত হতে দেখা যায় বর্তমান প্রধান নির্বাচককে। তিনি বলেন, ‘ওর তো বোঝানোর কথা না। যেসব খেলোয়াড় দেশদ্রোহী হয়ে ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে নিষিদ্ধ হয়, ওদের কাছ থেকে ভালো পরামর্শ আশা করা কঠিন।’

উইকেট নিয়ে সমালোচনাকারীদের একহাত নিলেন নান্নু
আশরাফুল দাবি করেন, নির্বাচক পদ কোনো পেশা নয়, এমন অভিমত ব্যক্ত করেছিলেন নির্বাচক প্যানেলের সদস্য হাবিবুল বাশার। ফাইল ছবি

সেই টিভি অনুষ্ঠানের ভিডিও ক্লিপ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি দৃষ্টিগোচর হয় আশরাফুলেরও। রবিবার (২ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজ থেকে লাইভে এসে নাতিদীর্ঘ আলোচনা করেন আশরাফুল। সেখানে তিনি দাবি করেন, নান্নুর কারণেই তার জন্য জাতীয় দলের দরজা খুলছে না।

আশরাফুল বলেন, ‘আপনার সাক্ষাৎকারেই বোঝা যাচ্ছে আপনার গুড বুকে আমি নেই বলেই এখন সুযোগ পাচ্ছি না। সেন্স ভাই আমাদের কম নেই। আল্লাহর রহমতে আমাদেরও মোটামুটি সেন্স আছে।

খেলা নিয়ে আমরাও সারাদিন চিন্তা করি। ছোটবেলা থেকে এখনও ঘুম থেকে উঠে সারাদিন ক্রিকেট নিয়ে চিন্তা করি। সাদাকে সাদা বলব, কালোকে কালো বলব। অন্যায় করেছি স্বীকার করি। আমার আত্মবিশ্বাস আছে বলে এখনও চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

আশরাফুলের দাবি, ফিক্সিংয়ের কথা প্রকাশ্যে স্বীকার করার কারণেই তিনি অনেকের অপ্রীতির পাত্র হয়েছেন। আশরাফুল বলেন, ‘আমি যদি প্রকাশ্যে স্বীকার না করতাম তাহলে হয়ত ভিন্ন চিত্র হত। তাহলে এক বছরের শাস্তি হত, হয়ত এখনও জাতীয় দলে খেলতাম।

আপনাদের কাছে এখনও ক্ষমা পাইনি, আপনার কথাতে এটা বুঝা যাচ্ছে। আমার প্রকাশ্যে স্বীকার করা ভুল হয়েছে। একেকজন কিন্তু একেক জায়গায় ভুল কাজ করছেন। চোখ কান খোলা রাখলেই শুধু হবে।’

আশরাফুলের দাবি, নির্বাচক প্যানেল নিয়ে তার করা ঐ মন্তব্য নান্নুর উদ্দেশে ছিল না, ‘আমি কোনো ব্যক্তির নাম বলিনি, আমি ঐ দায়িত্বের কথা বলেছি। নান্নু ভাই লাইভে ঢুকে সরাসরি আক্রমণ করলেন আমার নাম ধরে।

এটা আসলে খুব দুঃখজনক। আমি যে কথাটা বলেছি সেটা নান্নু ভাইকে নিয়ে বলিনি বা কারও নাম ধরে বলিনি। আমি আমার অভিজ্ঞতা থেকে আমার মতামত বলেছি।’

বিসিএলের প্রথম অর্ধশতক হাঁকালেন আশরাফুল
নান্নুর কারণেই জাতীয় দলে ফিরতে পারছেন না বলে অভিযোগ করেছেন আশরাফুল। ফাইল ছবি
‘উনি খুব সুন্দর করে অস্ট্রেলিয়ার একজনের উদাহরণ দিলেন।

আমি কিন্তু উনার নাম বলিনি যে নান্নু ভাইকে সরানো উচিৎ বা এমন কিছু। আমার মনে হয়েছে নির্বাচক পদ কোনো পেশা হতে পারে না যে আমি এখানে সারাজীবন থাকব ১০-১২ বছর ধরে। এটা একটা সম্মানের জায়গা হবে, ৩-৪ বছর থাকবেন।’

এ সময় আশরাফুল বাংলাদেশের ক্রিকেটে তার অবদানের কথা তুলে ধরেন। অভিমানের সুরে তিনি বলেন, ‘নান্নু ভাই যেভাবে নাম ধরে দেশদ্রোহী, ম্যাচ ফিক্সার বললেন, এটা তো ২০১৩ সালে হয়েছে। আমি সবার কাছে ক্ষমা চেয়েছি, শাস্তিও হয়েছে।

যেভাবে আক্রমণ করলেন, কষ্ট লেগেছে। আমি তো উল্টাপাল্টা কিছু বলিনি। যদি বলেন আমার অবদান নেই, তাহলে তো কিছু বলার নেই। আমার কিন্তু কম অবদান নেই। আপনি যদি মনে করেন আমি কিছু করিনি, তাহলে তো দুঃখজনক।’

‘ভুল স্বীকার করার রেওয়াজ বাংলাদেশে খুব কম। ভুল করেছি, শাস্তিও পেয়েছি, সেটা অতীত হয়ে গেছে এবং আমি এখন নতুন করে শুরু করেছি। চেষ্টা করছি মরার আগপর্যন্ত যেন ভালোমত থাকতে পারি।’

আশরাফুল এ সময় নান্নুর সাথে তার অতীতের সুসম্পর্কের কথা তুলে ধরেন। এমন দাবিও করেন, নান্নুকে মাঠে পানি খাইয়ে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএল) ম্যাচ খেলার সুযোগ অর্জন করেছিলেন।

আশরাফুল বলেন, ‘পুরো ম্যাচ পানি খাইয়ে আমার পরের ম্যাচ খেলার সুযোগ হয়েছিল। পানি নিয়ে দৌড়ে যেতাম, উনি চাইলেই খাওয়াতাম।

পরে বললেন তুই পরের ম্যাচ খেলবি। নান্নু ভাইয়ের মাধ্যমেই আমার প্রিমিয়ার লিগে খেলা (অভিষেক)। আমি কখনও অতীত ভুলি না। অতীত সবসময় আমার মনে আছে

Check Also

আগামী বিশ্বকাপে মাশরাফিকেই চান তামিম ইকবাল

আগামী বিশ্বকাপে মাশরাফিকেই চান তামিম ইকবাল গত বারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মহেন্দ্র সিং ধোনিকে মেন্টর হিসেবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *