Breaking News
Home / সারাদেশ / আগৈলঝাড়ার বাজারে দেশী লিচুর কদর

আগৈলঝাড়ার বাজারে দেশী লিচুর কদর

রাজশাহীসহ উত্তরাঞ্চলের চোখ ধাদানো লাল টকটকে লিচু আসা শুরু করলেও বিভিন্ন ক্যামিকাল দিয়ে ওই লিচু পাকানোর কারণে স্বাস্থ্যগত ঝুঁকির আশংকায় আগৈলঝাড়ায় দেশী লিচুর কদর বেড়েছে ক্রেতাদের কাছে।

স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত লিচু দেখতে লাল টকটকে না হলেও গ্রামাঞ্চলের বাড়ির আঙ্গিনা বা মাছের ঘেরের পাড়ে বানিজ্যিকভাবে উৎপাদিত লিচুর কদর বেড়েছে সর্বত্র। উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে লিচু বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে এমনই তথ্য পাওয়া গেছে।

লিচু ব্যবসায়ীরা জানান, গ্রামের বাড়ির গাছ থেকে লিচু পেড়ে ২০ ও ৫০টি করে আঁটি বেঁধে বিক্রির জন্য বাজারে সাজিয়ে রাখছেন তারা। বর্তমানে গ্রামের লিচুর কদর বেড়ে যাওয়ায় সাইজ ভেদে এক’শ লিচু দেড়শ থেকে আড়াইশ টাকা দরে বিক্রি করছেন বিক্রেতারা।

পাশাপাশি ফরমালিন দিয়ে রং বৃদ্ধি ও পাকানোর আতংকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা লাল টকটকে রসালো লিচু ছুঁয়েও দেখছেন না ক্রেতারা।

ব্যবসায়ীরা আরো জানান, উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে অসংখ্য লিচুর ছোট বাগান রয়েছে। অধিকাংশ লিচু গাছে এ বছর ফলন ভাল হলেও রোদের প্রখর তাপের কারণে লিচুর সাইজ একটু ছোট হয়েছে।

তবে খেতে বেশ মিষ্টি। অনেক সৌখিন মালিক তাদের বাড়িতে, ঘেরের পারে লিচুর বানিজ্যিক চাষ করায় সেখান থেকে লিচু কিনে বাজারে সরবরাহ করছেন ব্যবসায়িরা।

বাকাল গ্রামের ফল ব্যসায়ি গৌরাঙ্গ বৈদ্য, সেলিম মিয়া জানান, বাকাল এলাকায় তারা ৮/৯টি লিচুর বাগান কিনেছেন। স্থানীয় লিচু উত্তরাঞ্চলের লিচুর চেয়ে একটু কম মিষ্টি হলেও সচেতন মানুষের কাছে এর চাহিদা রয়েছে প্রচুর।

গ্রামাঞ্চলের ওইসব লিচু গাছে বাদুড় ও কাকের উপদ্রব থেকে লিচু রক্ষা করতে তিনি লোক দিয়ে বাগান পাহারা বসিয়েছেন।

এছাড়াও বাঁশ কিংবা টিনের তৈরি বিশেষ বাজনা বাজিয়ে উচ্চঃস্বরে শব্দ করে তাড়ানো হচ্ছে কাক ও বাঁদুড়। রাতের বেলায় লিচু গাছে জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে বৈদ্যুতিক বাতি। স্থানীয় লিচুর চাহিদা থাকায় ব্যবসায়িরা এবার লাভবান হচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

Check Also

আগৈলঝাড়ায় ৩শ প্রান্তিক চাষি পরিবারকে বিনামূল্যে আমন বীজ ও সার বিতরন

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় আমনের ফলন বাড়ানোর জন্য ৩শ জন প্রান্তিক চাষি পরিবারের মধ্যে বিনামূল্যে উন্নত জাতের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *