Breaking News
Home / সারাদেশ / আগৈলঝাড়ায় কোরবানির পশু বিক্রিতে শতাধিক খামারে দশ হাজার গবাদীপশু অপেক্ষমান

আগৈলঝাড়ায় কোরবানির পশু বিক্রিতে শতাধিক খামারে দশ হাজার গবাদীপশু অপেক্ষমান

আসন্ন পবিত্র ঈদ-ইল আযহাকে সামনে রেখে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের শতাধিক ছোটবড় খামারেরমালিকেরা দশ হাজার গবাদীপশু বিক্রির জন্য অপেক্ষমান রেখেছেন।

উপজেলার বাশাইল গ্রামের শামিম সিকদারের ফার্মে দেখা গেছে, প্রায় শতাধিক গরু প্রস্তুত রয়েছে বিক্রির জন্য। দেশীয় খাবার, চিকিৎসা প্রদানসহ সব রকমের প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে এসকল গবাদীপশু প্রতিপালন করেছেন তিনি। কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে শামিমের মত উপজেলার অন্তত শতাধিক খামারে বছর জুড়ে গবাদীপশু লালন পালন করা হয়েছে বিক্রির জন্য।

শামিম জানান, তিনি ২০১২ সালে ২০টি দেশি প্রজাতির ষাঁড় কিনে লালন পালন শুরু করেন। এখন তার খামারে ৫০টি ষাঁড়সহ শতাধিক গরু রয়েছে। পরিবারের অন্যান্য সদস্যর সাহায্য সহযোগিতায় বাড়িতেই ষাঁড়গুলো লালন পালন করে আসছেন তিনি। চোখে পরার মতো বড় ও মোটাতাজা হয়েছে গবাদী পশুগুলো।

ইতোমধ্যেই গবাদীপশু বিক্রিও শুরু হয়েছে। তার খামারে সবচেয়ে বড় ষাঁড়টির ওজন প্রায় ২৫শ কেজি। তার খামারে রয়েছে ৬টি মহিষও। কোন রকম কৃত্তিমতা ছাড়াই দেশীয় প্রযুক্তিতে খড়, খৈল, ভুঁষি ও কাঁচা ঘাস খাইয়ে লালন পালন করা হয়েছে গরুগুলো। এই পদ্ধতিতে গরু পালন একটু বেশি হলেও গরু কোন রকমের স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে থাকে না।

উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের আস্কর গ্রামের শহিদুল ইসলাম জানান, তিনি এ বছর ১২টি গরু বিক্রির জন্য খামারে রেখেছেন। গরুর কোন সমস্যা হলেই উপজেলা প্রাণীসম্পদ অফিসের লোকজনদের কাছ থেকে চিকিৎসা ও পরামর্শ নিয়েছেন। তবে এবছর গো-খাদ্যের দাম বেশি হওয়ায় লালন পালন ব্যয় বেড়েছে গত বছরের চেয়ে প্রায় দ্বিগুন।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান তরফদার বলেন, উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ছোটবড় শতাধিক গরুর খামার অন্তত দশ হাজার গবাদী পশু বিক্রির জন্য প্রস্তুত রেখেছে খামারীরা।

বাশাইল গ্রামের শামীম শিকদারের খামারটি উল্লেখযোগ্য জানিয়ে প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তরের তত্বাবধানে একেবারেই প্রাকৃতিক ও নির্ভেজাল পদ্ধতিতে অনেকেই গরু লালন-পালন করার কখা জানিয়েছেন এই কর্মকর্তা।

খামারের বড় সাইজের গরু গুলোর স্থানীয় ক্রেতা সংকট উল্লেখ করে বলেন এসকল গরু সাধারণত ঢাকা বড় শহরের ক্রেতাদের বেশি আকৃষ্ট করে। তিনি আরও জানান, তারা সার্বণিক এলাকার খামারিদের খোঁজ খবর রাখছেন। এলাকার গরুগুলো প্রাকৃতিকভাবে সুস্বাস্থের অধিকারী বলেও জানান তিনি।

About admin

Check Also

বরিশালের নিম্নাঞ্চল জোয়ারের পানিতে প্লাবিত

জোয়ারের পানিতে কীর্তনখোলা, সুগন্ধা, সন্ধ্যাসহ দণিাঞ্চলের নদী তীরবর্তী এলাকাসহ নিম্নাঞ্চল তলিয়ে গেছে। একইসাথে বেশির ভাগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *