Breaking News
Home / সারাদেশ / সোমালিয়ার জলদস্যুরা ছিলো হিংস্র

সোমালিয়ার জলদস্যুরা ছিলো হিংস্র

ক্যাপ্টেনের নির্দেশে আমাদের সবাইকে জাহাজের গোপন রুমে নিয়ে রেখেছিলেন চিফ অফিসার। তবে জলদস্যুরা জাহাজে উঠেই ক্যাপ্টেন আর চিফ অফিসারকে আটকে ফেলার কারণে বাধ্য হয়ে আমাদের সারেন্ডার করতে হয়েছে।

তখন হাত উপরে দিয়ে অনেকটা মুরগির মতো করে সবাইকে জাহাজের ব্রিজে যেতে হয়েছিলো। হাঁটু গেড়ে সবাই সেখান অবস্থান নিয়ে দেখি দস্যুদের সবার হাতে অস্ত্র। সেগুলো না চিনলেও আগের দেখা মুভির সাথে মিলিয়ে মনে হয়েছে একে ৪৭ হবে।

সোমালিয়ায় জলদস্যুদের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া ‘এমভি আব্দুল্লাহ’ জাহাজের প্রকৌশলী হোসাইন মোহাম্মদ আলী গত ১৬ মে দুপুরে জেলার বানারীপাড়া উপজেলার বিশারকান্দি ইউনিয়নের উমরেরপাড় গ্রামে ফিরেছেন। শুক্রবার সকালে সংবাদকর্মীদের কাছে জলদস্যুরা কীভাবে জাহাজে উঠে তাদের জিম্মি করে সে বর্ণনা দিয়েছেন।

ওই গ্রামের এমাম হোসেন মোল্লার ছেলে হোসাইন মোহাম্মদ আলী বলেন, প্রথম তিনদিন খুব ভয়াবহ দিন কেটেছে। জীবনে কোনদিন বাবা-মা, স্ত্রী ও স্বজনদের মাঝে ফিরে আসবো তা স্বপ্নেও ভাবিনী। কারণ জলদস্যুরা ছিলো হিংস্র। ওদের আচরণে মনে হয় ওরা এখনও জঙ্গলের মানুষের মতো।

ওদের চলাফেরা খাওয়া-দাওয়ার স্টাইল সবই ভিন্ন। মানে ওদের মাঝে এখনও সভ্যতাই আসেনি। সব চেয়ে ভয়ের বিষয় ছিল, ওরা সবসময় অস্ত্র লোড করে রাখতো, কোনো ভুল হলেই আমাদের কেউ না কেউ মারা যেত। আমরাও চেষ্টা করেছি ওরা যাতে অ্যাগ্রেসিভ না হয় সেভাবেই চলার।

আলী আরও বলেন, মুক্তির দিন বেলা ১১টার দিকে সবাইকে একটি জায়গায় সারিবদ্ধভাবে দাঁড়াতে বলে। এরপর ছোট একটি বিমান থেকে তিনটি বস্তা ফেলতে দেখি, তবে তার মধ্যে কি ছিল অনুমান করতে পারিনি।

কিন্তু ছাড়া পাওয়ার পর জানতে পারি তিনটি বস্তা ভর্তি ডলার ছিল। সম্পূর্ণ সুস্থ্যভাবে আমরা সবাই ফিরতে পারবো, তা কখনই ভাবিনী। এজন্য মহান সৃষ্টিকর্তার প্রতি শুকরিয়া আদায় করছি। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং আমাদের কোম্পানির মালিকসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

About admin

Check Also

আগৈলঝাড়ায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহন, চলছে ভোট গননা

আইন শৃংখলা বাহিনীর কঠোর নিরাপত্তায় ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে বরিশালের আগৈলঝাড়ায় ভোটার উপস্থিতি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *