Breaking News
Home / সারাদেশ / আগৈলঝাড়ায় যৌ’তুকের জন্য স্ত্রী’কে নির্যা’তনের মা’মলায় অভিযুক্ত স্বামী গ্রে’ফতার

আগৈলঝাড়ায় যৌ’তুকের জন্য স্ত্রী’কে নির্যা’তনের মা’মলায় অভিযুক্ত স্বামী গ্রে’ফতার

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় স্ত্রীর দায়ের করা যৌ’তুক ও নির্যা’তনের মা’মলায় অভি’যুক্ত স্বামীকে মঙ্গলবার রাতে গ্রে’ফতার করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে গ্রে’ফতারকৃ’তকে বরিশাল আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

থানা অফিসার ইন চার্জ মো. আফজাল হোসেন এজাহারের বরাত দিয়ে জানান, উপজেলার মুড়িহার গ্রামের বশির সিকদারের স্ত্রী এক সন্তানের জননী টুম্পা বেগম (২৩) অভি’যোগ করেন যে, তার বিয়ের বয়নের নয় বছরের মধ্যে তার স্বামী বশির সিকদার (৩০) শ্বাশুরী জাহানারা বেগম (৪৮) ও চাচাতো দেবর স্বপন সিকদার(৩২)র প্ররোচনায় টুম্পাকে তার বাবার বাড়ি থেকে বিদেশ যাবার জন্য যৌ’তুক বাবদ ২লাখ টাকা এনে দিতে বলে।

টুম্পার তার বাবার কাছে স্বামী বিদেশ যাবার কথা জানালে তার বাবা বহু কষ্ট করে জামাই বশিরেকে বাড়িতে ডেকে এনে ২লাখ টাকা যৌ’তুক প্রদান করেন।
যৌ’তুকের দুই লাখ টাকা পেয়ে বশির নিজে বিদেশ না গিয়ে তার ছোট ভাই নবিউলকে বিদেশ পাঠায়। নবিউল বিদেশ যাবার পরে পুনরায় বশির নিজে বিদেশ যাবার কথা বলে টুম্পাকে তার বাবার বাড়ি থেকে আরও চার লাখ টাকা এনে দিতে বলে।

টুম্পা তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা এনে দিতে অস্বীকার করলে সোমবার বিকেলে স্বামী বশির ও তার মা টুম্পাকে লাঠিপেটা করে আ’হত করে। এসময় ও চাচাতো দেবর স্বপন তাদের মা’রধ’রে সহায়তা করে। টুম্পার ডাক চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে আ’হতাবস্থায় তাকে উ’দ্ধার করে বাবার বাড়ি খবর দিলে টুম্পার বাবার বাড়ির লোকজন টুম্পাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে গৌরনদী হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে টুম্পা বাদী হয়ে মা’রধর’করা স্বামী, শ্বাশুরী ও চাচাতো দেবরকে আ’সামী করে থানায় মা’মলা দায়ের করেন, নং-১৪ (২৩.৯.২০)।
মা’মলার তদ’ন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শাহাবুদ্দিন ওই রাতেই অভি’যান চালিয়ে প্রধান অভিযু’ক্ত স্বামী বশির সিকদারকে গ্রে’ফতার করেছে। বুধবার দুপুরে গ্রে’ফতারকৃ’ত বশিরকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Check Also

বিভাগের সবচেয়ে বেশী পুজা অনুষ্ঠিত আগৈলঝাড়ায়,পুজা মন্ডপ পরিদর্শণে বরিশাল বিভাগীয় কমশিনার

আগৈলঝাড়া উপজেলায় ১শ ৬০টি মন্ডপে শারদীয় দুর্গা পুজার মধ্যদিয়ে বরিশাল বিভাগের সবচেয়ে বেশী দুর্গা পুজা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *