Breaking News
Home / সারাদেশ / আগৈলঝাড়ায় অভিযান নেই স্বাস্থ্য বিভাগের তালিকাভুক্ত অবৈধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে

আগৈলঝাড়ায় অভিযান নেই স্বাস্থ্য বিভাগের তালিকাভুক্ত অবৈধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে

কাগজপত্র বিহীন নিয়ম বহির্ভূতভাবে গড়ে ওঠা অনুমোদনহীন অবৈধ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনিস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অভিযানের কড়া নির্দেশনা থাকলেও বরিশালের আগৈলঝাড়ায় সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের তালিকাভুক্ত অবৈধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নেই কোন অভিযান।

সঠিক রোগ নির্ণয়ের জন্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা এসব অবৈধ প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ঠ প্রশাসনের নাকের ডগায় জনগনের সাথে বছরের পর বছর প্রতারণা করে ব্যবসা চালিয়ে আসলেও কোন রকমেই বন্ধ করতে পারছে না প্রশাসন।

৫ ফেব্রুয়ারি উপজেলা সদরে দুটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালায় প্রশাসন। একটিতে জরিমানা করে অন্যটিতে মুচলেকা নিয়ে শতর্ক করে দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) উম্মে ইমামা বানিন।

রেজিষ্টার্ড চিকিৎসক না থাকা, হাতুড়ে টেকনোলজিস্ট দিয়ে মানসম্মত পরিবেশ না থাকা প্রতিষ্ঠানগুলো ভুয়া রিপোর্ট প্রদান করে বানিজ্য করায় স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হওয়া রোগী ও তাদের স্বজনেরা সরকারের তালিকাভুক্ত অবৈধ, ভুয়া প্রতিষ্ঠান বন্ধের জোর দাবি জানিয়েছেন।

জানা গেছে, ভুয়া ডায়াগনষ্টিক সেন্টারগুলোর বিরুদ্ধে বছরে একবার সিভিল সার্জন, ড্রাগ সুপার ও বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা নির্দিষ্ট দিন তারিখ জানিয়ে পরিদর্শনের আসেন। কর্মকর্তারা পরিদর্শনে আসলে ব্যাসায়ি ও কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে পিকনিক পার্টিতে হয় ভুড়িভোজ।

এসব ভুয়া প্রতিষ্ঠানের মালিকদের নিয়ে গড়া সংগঠন “আগৈলঝাড়া প্যাথলজি ক্লিনিক ও ডেন্টাল এসোসিয়েশন” সংগঠনের মাধ্যমে চাঁদা তুলে কর্মকর্তাদের আপ্যায়িত করে তেল খরচের নামে মোটা অংকের অর্থ দিয়ে তাদের বিদায় দেয়া হয়।

বরিশাল জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্র মতে, তাদের অফিসের ২৯১১নং স্বারকের এক পত্রে লাইসেন্স বিহীন হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়গনিষ্টিক সেন্টারের জানতে চাওয়া তালিকায় আগৈলঝাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বখতিয়ার আল মামুন স্বাক্ষরিত ২৮৫৭নং স্মারকে মোট ৫টি অবৈধ হাসপাতাল ও ৭টি ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারের তালিকা সিভিল সার্জন অফিসে প্রেরণ করা হয়। বর্তমান ওই তালিকায় উপজেলায় মোট ১২টি ভুয়া প্রতিষ্ঠানের অবস্থান থাকলেও সেখানে নেই কোন অভিযান।

স্বাস্থ্য দপ্তরের তালিকায় অবৈধ হাসপাতাল ও ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারের মধ্যে পয়সা গ্রামে আদর্শ জেনারেল হাসপাতাল ও ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার, রাজিহার গ্রামে মারিয়া মাদার হাসপাতাল ও ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার, উপজেলা সদরে ডিজিটাল হাসপাতাল ও ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার,

দুঃস্থ মানবতার হাসপাতাল ও ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার, দিশা ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার, গ্রামীণ প্যাথলজি, বাগধা ডিজিটাল ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার, গৈলা লাইফ কেয়ার ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার, গৈলা তালুকদার ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার,

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে অবস্থিত সিকদার সন্যামত ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার ও পয়সারহাটে জনসেবা ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার। তবে অনেক অবৈধ ডেন্টাল ক্লিনিক ও ডায়াগনিস্টিক সেন্টারে নাম নেই এই তালিকায়।

প্রশাসন অবৈধ প্রতিষ্ঠানের তালিকা তৈরীর পরেই ওই প্রতিষ্ঠানগুলো জানতে পায় “অবৈধ তালিকায়” উঠেছে তাদের নাম। এরপর শুরু হয় ম্যানেজের জন্য দৌঁড়ঝাপ।

এক পর্যায়ে নতুন করে প্রতিষ্ঠানের নাম পাল্টে নতুন সাইনবোর্ড ব্যবহার করে নতুন উদ্যমে তারা শুরু করে প্রতারণার ব্যবসা। এক সময়ে অবৈধ তালিকায় নাম ছিল উল্লেখিত প্রতিষ্ঠানসহ ২৮টি প্রতিষ্ঠানের নাম। এখন তা নেমে এসেছে ১২টিতে। যারমধ্যে নতুনভাবে গড়ে ওঠা ডেন্টাল কিনিকের কোন নামই নেই।

ভুয়া ওই প্রতিষ্ঠানে হাতুড়ে টেকনোলজিষ্ট দিয়ে রোগীদের পরীক্ষার ভুল রিপোর্ট প্রদানের কারণে চরম স্বাস্থ্য ঝুকিতে পরছে রোগীরা। রিপোর্ট অনুযায়ি চিকিৎসকেরা চিকিৎসা প্রদান করায় তা পরবর্তিতে ভুল চিকিৎসার প্রমানও রয়েছে ভুরি ভুরি। অবৈধ ডায়াগনষ্টিক সেন্টার জেনেও হাসপাতালের অনেক চিকিৎসক ও হাতুড়ে চিকিৎসকেরা ওই সকল ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারে পরীার জন্য রোগীদের পাঠানোর অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বখতিয়ার আল মামুন বলেন প্রতি হাসতালে ডাক্তার রাখার কথা থাকলেও তা মানা হয় না। অনেকের লাইসেন্স আছে তবে তা রিনিউ নেই।

অবৈধ হাসপাতাল, ডেন্টাল ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার বন্ধের জন্য প্রশাসনিকভাবে চিকিৎসকেরা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করতে না পারায় অবৈধ এসব প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে ম্যাজিষ্ট্রেটসি’র জন্য নির্বাহী অফিসারকে চিঠি দিয়ে অভিযান পরিচালনা করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষার বিষয়ে ডা. বখতিয়ার আল মামুন বলেন, আমরা রোগীকে পরীক্ষা করতে বলি, তারা কোথায় পরীক্ষা করাবেন সেটা চিকিৎসকদের জানার বিষয় নয় বলেও জানান তিনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারিহা তানজিন বলেন- স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তালিকাভুক্তসহ তাীলকার বাইরের অবেধ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সহসাই অভিযান পরিচালনা করা হবে। অভিযানে অবৈধ, ভুয়া প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

About admin

Check Also

গৌরনদীতে অগ্নিকান্ডে পাঁচটি বসতঘর ভষ্মিভূত

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের পূর্ব বয়সা গ্রামের পাঁচটি বসতঘর অগ্নিকান্ডে সম্পূর্ন ভষ্মিভূত হয়েছে। খবর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *