Breaking News
Home / সারাদেশ / মহামান্য রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর ধন্যবাদ প্রস্তাব

মহামান্য রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর ধন্যবাদ প্রস্তাব

মহামান্য রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর ধন্যবাদ প্রস্তাব সংক্রান্ত ২৮ ফ্রেব্রুয়ারি ২০২৪খ্রিঃ জাতীয় সংসদে দক্ষিণ বাংলার অবিসংবাদিত নেতা, মন্ত্রী মর্যাদায় পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন ও পরীবিক্ষণ কমিটির আহ্বায়ক, বরিশাল-১ আসনের এমপি আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ’র বক্তৃতার পূর্ণ বিবরণঃ

মাননীয় স্পীকার, মহামান্য রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের উপর আলোচনার সুযোগ দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাই। বক্তব্যের শুরুতেই আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি, স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী,

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বরন করছি, সকল ভাষা শহীদকে ও ১৯৭১ সালের মহান
মুক্তিযুদ্ধে শাহাদাত বরণকারী সকল শহীদ, বীর মুক্তিযুদ্ধা ও দুই লক্ষ মা-বোনকে, যাঁদের রক্ত ও সম্ভ্রমের বিনিময়ে আমরা একটি স্বাধীন দেশ পেয়েছি।

আমি স্মরণ করছি, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে শাহাদাতবরণকারী বেগম ফজিলাতুন নেসা মুজিব, শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, সুলতানা কামাল, পারভীন জামাল রোজী,

শেখ আবু নাসের, আমার পিতা সাবেক মন্ত্রী আবদুর রব সেরনিয়াবাত, আমার ভাই আরিফ সেরনিয়াবাত, শহীদ সেরনিয়াবাত, আমার বোন আরজু মণি, বেবী সেরনিয়াবাত, আমার ভগ্নিপতি যুবলীগ প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শেখ ফজলুল হক মণি এবং আমার চার বছরের শিশুপুত্র সুকান্ত বাবুকে।

আমি স্মরণ করছি, জাতীয় চারনেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমেদ, এম মনসুর আলী এবং এ এইচএম কামরুজ্জামানকে।

আমি স্মরণ করছি, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত নারীনেত্রী আইভি রহমানসহ আওয়ামী লীগের ২৪ জন নেতা কর্মীকে।

মাননীয় স্পীকার,
আমি কৃতজ্ঞতা জানাই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ
হাসিনাকে। যিনি আমাকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দিয়ে বরিশাল জেলার গৌরনদী ও আগৈলঝাড়া
উপজেলা থেকে ৫ বার সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ দিয়েছেন।

একই সাথে আমি কৃতজ্ঞতা জানাই
আমার নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি জনগণকে। যাদের দোয়া, ভালবাসা ও ভোটে নির্বাচিত হয়ে আজ আমি মহান সংসদে বক্তব্য দেয়ার সুযোগ পেয়েছি।

একই সাথে চতুর্থ বারের মত আপনি বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পীকার নির্বাচিত হওয়ায় আপনাকেও জানাই
আন্তরিক অভিনন্দন।

মাননীয় স্পীকার,
বাংলাদেশের সংবিধান সমুন্নত ও সংসদীয় গণতন্ত্রের ধারা অব্যাহত রেখে বিভিন্ন দেশি ও বিদেশী ষড়যন্ত্র নস্যাৎ
করে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা পঞ্চম বারের মত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ায় আমি তাঁকে প্রাণঢালা অভিনন্দন জানাচ্ছি এবং তাঁর সুস্বাস্থ ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি।

মাননীয় স্পীকার,
মহামান্য রাষ্ট্রপতি দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে যে ভাষণ প্রদান করেছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয় ও
যুগোপযোগী। তিনি তাঁর ১৪৩ পৃষ্ঠার ভাষণে গণতন্ত্রের ধারা অব্যাহত রাখা, ডিজিটাল বাংলাদেশ, মাননীয়
প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার রুপকল্প ‌-২০৪১’ এবং স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন। সেজন্য
আমি মহামান্য রাষ্ট্রপতি জনাব মোঃ সাহাবুদ্দিনকে ধন্যবাদ জানাই।

মাননীয় স্পীকার,
স্বাধীনতার ৫৩ বছরের ইতিহাসে অন্যতম শ্রেষ্ঠ অর্জন ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন। দেশের ১৮ কোটি মানুষ এর
সুফল ভোগ করছে। বর্তমান সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত দেশের কাতারে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে
কাজ করে যাচ্ছে।

মাননীয় স্পীকার,
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন পরিকল্পনা সমগ্র বিশ্বে আজ প্রশংসিত এবং অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এসব উদ্যোগ বাংলাদেশের উন্নয়নে প্রধান ভূমিকা পালন করছে।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগের মধ্যে (১) ডিজিটাল বাংলাদেশ, (২) আশ্রয়ন প্রকল্প, (৩) শিক্ষা সহায়তা,
(৪) কমিউনিটি ক্লিনিক ও শিশুর মানসিক বিকাশ, (৫) সামাজিক নিরাপত্তা, (৬) পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক, (৭) সবার
জন্য বিদ্যুৎ, (৮) নারীর ক্ষমতায়ন, (৯) পরিবেশ সুরক্ষা, (১০) বিনিয়োগ বিকাশ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই ১০টি
বিশেষ উদ্যোগ ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে পথ নির্দেশনা হিসেবে কাজ করছে।

মাননীয় স্পীকার,
১৯৯৭ থেকে ১৫ জানুয়ারী ২০২৪ পর্যন্ত দেশের ৮ লক্ষ ৫১ হাজার ৭০১টি ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল ও অসহায়
পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। দেশের ৩৯৪টি উপজেলাকে সম্পূর্ণরুপে ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা
হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্যোগ বিশ্বের দরবারে ‘শেখ হাসিনা মডেল’ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে।

মাননীয় স্পীকার,
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন সরকারের ধারাবাহিক তিন মেয়াদে আর্থ-সামাজিক, অবকাঠামো উন্নয়নে অভুতপূর্ব
সাফল্য অর্জিত হয়েছে। যেমন: কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অর্থনীতি, ব্যবসা-বাণিজ্য, যোগাযোগ, ব্যাংকিং, প্রশাসন, উদ্ভাবন, দক্ষ মানবসম্পদ উন্নয়ন, ডিজিটাল অর্থনীতি, আইসিটি শিল্পসহ প্রায় সব খাতে সমানভাবে উন্নতি হয়েছে।

এছাড়া জেন্ডার সমতা ও নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ এখন দক্ষিণ এশিয়ার শীর্ষে রয়েছে। এখন আমাদের
লক্ষ্য ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করা। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পর আমাদের
পরবর্তী লক্ষ্য স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলা।

মাননীয় স্পীকার,
চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের নানা চ্যালেঞ্ছ মোকাবেলা করে আমাদের তরুণদের প্রশিক্ষিত করে তোলার উদ্যোগ নেয়া
হয়েছে।

মেধা ও প্রযুক্তিনির্ভর স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে স্মার্ট বাংলাদেশের চারটি স্তম্ভ নির্ধারণ করা হয়েছে যেসগুলো
হচ্ছে, স্মার্ট নাগরিক, স্মার্ট অর্থনীতি, স্মার্ট সরকার ও স্মার্ট সমাজ।

মাননীয় স্পীকার,
২০১৯ সালের কোভিড-১৯ এর অপ্রত্যাশিত অভিঘাত, ২০২২ সালের ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ, বিশ্ব অর্থনীতি
চ্যালেঞ্ছে পড়ে। কিন্তু আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সময়োপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ ও কার্যকর
প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নের মাধ্যমে সেই অর্থনৈতিক মন্দা সফলভাবে মোকাবেলা করতে সক্ষম হই। অর্থনৈতিক
প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে আজ উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

মাননীয় স্পীকার, এখন আমি আপনার মাধ্যমে দক্ষিণাঞ্চলের কয়েকটি দাবী তুলে ধরছি:
 আমার নির্বাচনী এলাকা আগৈলঝাড়ায় একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য মাননীয় অর্থমন্ত্রীর ২০১৫-১৬ অর্থ বছরের বাজেট বক্তৃতায় অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহের তালিকার ৮নং ক্রমিকে একটি প্রস্তাব উত্থাপন
করেছিলেন। জমি অধিগ্রহণসহ বেশ কিছু কার্যক্রম গ্রহণের পর বরিশালের জেলা প্রশাসক অর্থনৈতিক অঞ্চলের নির্বাহী চেয়ারম্যান বরাবর প্রস্তাব পাঠিয়েছেন।

কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও অর্থনৈতিক অঞ্চলের কার্যক্রম এখনও শুরু হয়নি। তাই জরুরী ভিত্তিতে সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে আগৈলঝাড়ায় অর্থনৈতিক অঞ্চলের কাজ শুরু করার প্রস্তাব করছি।

 মাননীয় স্পীকার, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বরিশালের এক জনসভায় ঘোষণা করেছিলেন,
ভোলা থেকে পাইপ লাইনের মাধ্যমে বরিশালে গ্যাস সরবরাহ করা হবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন হয়নি। তাই জরুরী ভিত্তিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নের অনুরোধ জানাচ্ছি।

About admin

Check Also

গৌরনদীতে নানা আয়োজনে বর্ষবরন

নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে বরিশালের গৌরনদীতে বাংলা নববর্ষ উদ্যাপিত হয়েছে। প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও উপজেলা প্রশাসনের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *